Sub Lead Newsসারা বাংলা

হোটেলে মিলছে না রুম

তাঁবুতে থেকেও কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখছেন পর্যটকরা

প্রতিনিধি, পঞ্চগড়

তাঁবুতে থেকেও কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখছেন পর্যটকরা। পঞ্চগড়ে কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখতে আসা পর্যটকরা হোটেল সংকটে পড়েছেন। পর্যটকদের অনেকেই তাঁবু টাঙিয়ে রাত যাপন করছেন।

রোববার ভোরে পর্যটকরা ঘুরে ঘুরে বিভিন্ন স্থানে দাঁড়িয়ে কাঞ্চনজঙ্ঘা উপভোগ করছেন। কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখার পর তারা বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান দেখছেন। এর মধ্যে সমতলের চা বাগান, বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্ট, স্থলবন্দর-ইমিগ্রেশন, মহানন্দা নদীতে দল বেঁধে শ্রমিকদের পাথর উত্তোলন, পড়ন্ত বিকেলে সূর্যাস্ত উপভোগ করতে পারছেন। আবাসিকে রুম না পাওয়ায় বিপাকে পড়তে হচ্ছে তাদের।

তাঁবুতে থেকেও কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখছেন পর্যটকরা

ব্রহ্মতোল গ্রামের মকসেদুল ইসলামের আম-লিচু বাগানে বেশ কয়েকজন পর্যটক তাঁবু টাঙিয়ে রাত-যাপন করছেন। তারা জানান, কাঞ্চনজঙ্ঘাসহ এ অঞ্চলের দর্শনীয় স্থানসমূহ আমাদের খুব মুগ্ধ করেছে। তবে দুঃখের বিষয় এখানে আবাসিকে কোনো রুম না থাকায় গ্রামে গিয়ে তাঁবু টাঙিয়ে রাতযাপন করে ভোরে কাঞ্চনজঙ্ঘা উপভোগ করেছি।

তেঁতুলিয়ায় বেশ কয়েকটি আবাসিক হোটেল রয়েছে। জেলা পরিষদ ডাকবাংলোর বেরং কমপ্লেক্স, আরডিআরএস, জনস্বাস্থ্য ও অফিসার্স ক্লাবে পর্যটকদের আবাসন ব্যবস্থা তৈরি করা হয়েছে। পর্যটকের তুলনায় এই সময়ে এসব আবাসন কম। আবাসিক হোটেলে রুম না পেয়ে আশপাশের বাসা বাড়িতে রাত্রিযাপন করতে হচ্ছে ভ্রমণপিপাসুদের।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, হেমন্ত ঋতুতে কাছ থেকে কাঞ্চনজঙ্ঘার মনোম্গ্ধুকর রূপ উপভোগ করতে পর্যটকের আগমনে মুখর হয়ে উঠেছে তেঁতুলিয়া। পর্যটকদের কথা চিন্তা করে আমরা ডাকবাংলোয় থাকার ব্যবস্থা করেছি। আবাসন সংকট আছে সত্যি, তবে দিন দিন আবাসন ব্যবস্থা গড়ে উঠছে। ইতোমধ্যে জেলা পরিষদ, সড়ক ও জনপথ বিভাগ কর্তৃক নতুন দুটি রেস্টহাউস নির্মাণ করা হয়েছে। পর্যটকদের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশাসন তৎপর রয়েছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button