Exclusive 2শিক্ষা ও শিক্ষাঙ্গন

শাবি শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙাতে ব্যর্থ শিক্ষকরা

প্রতিনিধি,শাবিপ্রবি

তিন ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থেকে শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙাতে ব্যর্থ হয়ে অবশেষে ফিরে গেলেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের একটি প্রতিনিধি দল।

বুধবার (১৯ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ৮টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত শতাধিক শিক্ষকদের প্রতিনিধি দল শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙাতে এসে ব্যর্থ হয়ে ফিরে যান।

এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ারুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, আমরা এসেছিলাম আমাদের শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙাতে। আমরা তাদের কাছে সে সময়টুকু চেয়েছি যেন এ ঘটনার পেছনে কারা জড়িত সেটা খুঁজে বের করতে পারি। শিক্ষার্থীরা আমাদের ওই সুযোগটা দেয়নি। আমরা আবার চেষ্টা করব, যেন তাদের বুঝাতে পারি।

শিক্ষকরা আন্দোলনস্থলে উপস্থিত হলে শিক্ষার্থীদের স্লোগানে উত্তপ্ত হয়ে উঠে ক্যাম্পাস। এ সময় শিক্ষার্থীরা শিক্ষকদের কাছে এক দফা দাবির সঙ্গে একমত কিনা তা ‌‘হ্যাঁ’ অথবা ‘না’ এই দুটির যে কোনো একটি জানতে চান।

শিক্ষার্থীরা বলেন, যদি আপনারা আমাদের একদফা দাবির সঙ্গে একমত পোষণ করেন তাহলে আমরা আপনাদের সঙ্গে কথা বলব। এছাড়া আমরা আপনাদের সঙ্গে কোনো ধরনের কথা বলতে রাজি নই।

রাত ৮টার দিকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আন্দোলনস্থলে এসে একাত্মতা ঘোষণা করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থীরা।

বুধবার বিকেল ৩টার দিকে শিক্ষার্থীরা আমরণ অনশন শুরু করেন। মঙ্গলবার রাত সোয়া ১০টার দিকে উপাচার্যকে পদত্যাগের জন্য বুধবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত সময়ে বেধে দিয়েছিলেন। দাবি না মানলে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা আমরণ অনশনের ঘোষণা দিয়েছিলেন।

পুলিশ-শিক্ষার্থী সংঘর্ষের ঘটনায় দুই থেকে ৩০০ অজ্ঞাত শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ। মামলার এজাহারে লেখা হয়েছে- আন্দোলনরত ২-৩শ উচ্ছৃঙ্খল শিক্ষার্থী হঠাৎ কর্তব্যরত পুলিশের ওপর চড়াও হয়। তারা সরকারি আগ্নেয়াস্ত্র ধরে টানাটাানি করে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। চারদিক থেকে বৃষ্টির মতো ইটপাটকেল নিক্ষেপসহ আগ্নেয়াস্ত্র থেকে গুলি ছোড়ে। এছাড়া পুলিশের ওপর ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ক্যাম্পাসে আতঙ্ক সৃষ্টি করে।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলন শুরু হয় বৃহস্পতিবার  রাতে। তখন শিক্ষার্থীদের অভিযোগ ছিল, হলে নানা সমস্যা রয়েছে। এসব সমস্যার সমাধান চেয়ে তারা বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী ছাত্রীহলের প্রভোস্ট সহযোগী অধ্যাপক জাফরিন আহমেদকে কল করেন। প্রভোস্টকে ফোন দিলে তিনি বলেন, ‘বের হয়ে গেলে যাও, কোথায় যাবে? আমার ঠেকা পড়েনি।

পরে প্রভোস্টের পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলন করেন তারা। এরইমধ্যে রোববার (১৬ জানুয়ারি) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব ইনফরমেশন অ্যান্ড কমিউনিকেশন টেকনোলজি (আইআইসিটি) ভবনের সামনে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হন। তার আগে বিকেলে তিন দফা দাবি মেনে না নেওয়ায় উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইআইসিটি ভবনে অবরুদ্ধ করেন শিক্ষার্থীরা। উপাচার্যকে পুলিশ উদ্ধার করতে গেলে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ওই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষহল ত্যাগের নির্দেশ দেয় শিক্ষার্থীদের । নির্দেশ অমান্য করে আন্দোলন চালিয়ে যান শিক্ষার্থীরা। প্রভোস্টের পদত্যাগের দাবিতে শুরু হওয়া আন্দোলন উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে পরিণত হয় অবশেষে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button